in artical

যাত্রীবাহী সুরভী লঞ্চ থেকে নিখোঁজ কলেজছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শনিবার সকালে মেঘনা নদীতে জেলেদের জালে লাশটি উঠে আসে। পরে হিজলা থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। মেহেদী হাসান বাপ্পি (১৭) নামের ওই কলেজছাত্রের লাশ পুলিশ দুপুরের দিকে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে প্রেরণ করে।

রাজধানীর একটি কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান বাপ্পি গত ১১ জানুয়ারি এমভি সুরভী-৯ লঞ্চযোগে তার মায়ের সাথে গ্রামের বাড়ি ঝালকাঠির পোনাবালিয়া গ্রামে যাওয়ার উদ্দেশে ঢাকা সদরঘাট থেকে রওনা দেয়। পরদিন অর্থাৎ ১২ জানুয়ারি সকালে লঞ্চটি বরিশাল নৌবন্দরে পৌঁছলে ছেলে খুঁজে না পেয়ে বরিশাল কোতয়ালি মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন তার মা। পরে তার সন্ধানে নদীতে বিশাল এলাকাজুড়ে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকর্মীরা তল্লাশিও চালিয়ে ব্যর্থ হয়।

হিজলা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, শনিবার সকালে জেলেদের জালে কলেজছাত্রের লাশটি উঠে আসলে তারা থানায় নিয়ে আসে। পরে লাশটির সুরতাহল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

কিন্তু কী ভাবে কলেজছাত্র লঞ্চ থেকে নদীতে পড়লেন সেই হিসেবেটি পুলিশ তাৎক্ষণিক মেলাতে পারছে না। তাছাড়া কলেজছাত্রের শরীরের কোথাও আঘাতের চিহ্নও পাওয়া যায়নি। ফলে পুলিশ এই প্রাণবিয়োগের ঘটনাটিকে আপাতত খুনের দৃষ্টিতেও দেখতে চাইছে না।

তবে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলে বিষয়টি পুরোপুরি মিলে যাবে বলে মনে করছেন এসআই আবু বক্কর সিদ্দিক।’