তানজিল আহমেদ রনি

চুয়াডাঙ্গার সম্মানিত নাগরিকবৃন্দ,
আসসালামু আ’লাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহু।
সকলকে পবিত্র রমজানের শুভেচ্ছা। সেই সাথে বাঙালি জাতির হাজার বছরের সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎসবের মাস, বাংলা মাস পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

আপনারা সকলে অবগত আছেন বৈশ্বিক মহামারী করোনার ভয়াবহতা মোকাবেলায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার আগামীকাল ১৪ই এপ্রিল, পহেলা বৈশাখ থেকে সাত দিনের জন্য দেশব্যাপী লকডাউন ঘোষণা করেছেন। আপনারা ইতিমধ্যে জেনে গেছেন আমরা এই মহামারীর দ্বিতীয় ধাপ অতিক্রম করছি এবং এই দ্বিতীয় ধাপে দেখতে পাচ্ছি আক্রান্ত এবং মৃত্যু রেট অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় অনেক বেশি। এর ভয়াবহতা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আমরা আলোকিত সভ্যতার মানুষ। এক বছর ধরে এই ভয়াবহ বৈশ্বিক মহামারী করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে বার বার সচেতন করা হলেও এখন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধির কোনটায় আমরা মানছি না। অথচ স্বাস্থ্যবিধির সবচেয়ে সহজ সাধ্য পদ্ধতি হচ্ছে সাবান দিয়ে উত্তম রূপে হাতধৌত করণ, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা তথা অন্ততঃ ৬ ফুট দূরত্বে থেকে মানুষের স্বাভাবিক কর্মকান্ড পরিচালনা নিশ্চিতকরণ, মাস্ক পরিধান, কোন গুরুত্বপূর্ণ কাজ ব্যতীত বাহির না হওয়া-এসব সহজ পথ আমরা কোনোভাবেই মানতে পারছিনা। অথচ আমার নিরাপত্তার’ সাথে আমার পরিবারের নিরাপত্তা জড়িত তথা পুরো দেশের নিরাপত্তা জড়িত। আমি যদি স্বাস্থ্যবিধি গুলো না মেনে অবহেলার সাথে আমাকে নিরাপত্তাহীন করে তুলি, তাহলে দেখা যাবে আমরা আমাদের পুরো পরিবার কে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছি। আমাদের এ ধরনের অবহেলা জনক কর্মকাণ্ডের দায় আমাকেই বহন করতে হবে। আমাদের কারণে যদি আমাদের পরিবারের কোন সদস্য মৃত্যুবরণ করে, আপনারা নিজেদের ক্ষমা করতে পারবেন না। মনে রাখবেন আপনার এই কর্মকান্ড একটি হত্যাকাণ্ড ঘটানোর শামিল। সুতরাং আমরা সকলেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলব। স্বাস্থ্য বিধি না মেনে নিজের বিপদ ডেকে আনা মানেই আপনি আপনার পরিবারকে নিরাপত্তাহীন করে তুলছেন এবং এভাবেই দেশের মানুষকে হুমকির মধ্যে ফেলে দিচ্ছেন। আমাদের অল্প কয়েকদিনের কষ্ট তথা লকডাউনের শর্ত মেনে চলা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার মধ্যেই নিহিত আছে আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন।
আসুন, সকলে মিলে বলি –
“মাস্ক পরার অভ্যেস, করোনামুক্ত বাংলাদেশ।
“বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ
নিম্নে ১৪ ই এপ্রিল থেকে লকডাউনের সরকারি নির্দেশনা এবং আরোপিত শর্ত গুলো আপনাদের সুবিধার্থে দেওয়া হয়েছে।

ওসি চুয়াডাঙ্গা সদর।