শেরপুর প্রতিনিধি: শেরপুর জেলা শহরের নয়আনী বাজার অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড শেরপুর শাখায় ১১ মে মঙ্গলবার দুপুরে গ্রাহক ও ব্যাংক কর্মকর্তাদের বাকবিতন্ডার জের ধরে ব্যাংক কর্মকর্তা সোমা আক্তারের স্বামী শামীম আহমেদ রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে কর্মরত পরিচয় দিয়ে শেরপুর পৌরসভার কসবা কাঠগড় মহল্লার বাসিন্দা সাংবাদিক মো. জাহিদুল খান সৌরভ ও তার পরিবারের মহিলাসহ অন্যান্যদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত, গুলি করার ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

পরে ভুক্তভোগী সাংবাদিক জাহিদুল খান সৌরভ ১২ মে বুধবার পুলিশ পরিচয় দানকারী শামীম আহমেদ এর বিরুদ্ধে শেরপুর সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ১১ মে বিকেল ৩টায় পুলিশ পরিচয় দানকারী শামীম আহমেদের স্ত্রী সোমা আক্তার শেরপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড নয়আনী বাজার শাখায় কর্মরত অবস্থায় গ্রাহক জাহিদুল খান সৌরভের সাথে ব্যাংকের একটি চেক সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে প্রথমে বাকবিতন্ডা হয়।

এক পর্যায়ে ওই ব্যাংকের প্রহরী আনসার সদস্য তাহের সহ কিছু ব্যাংক কর্মকর্তা তার সাথে খারাপ আচরণ ও শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। এরপর ভুক্তভোগী সাংবাদিক জাহিদুল খান সৌরভ বিষয়টি শেরপুর প্রেসক্লাব কর্মকর্তাদের জানালে ওই দিন তারা ব্যাংকে গিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে বিষয়টি মিমাংসা করে দেন। এতেও খান্ত থাকেনি ওই ব্যাংক কর্মকর্তা সোমা আক্তার। পরে বাসায় গিয়ে বিষয়টি তার স্বামী শামীম আহমেদকে জানায়।

এঘটনার জের ধরে পরদিন বুধবার সকাল ১০টায় পুলিশ সদস্য পরিচয় দানকারী সাদা পোশাক ধারী শামীম আহমেদ কসবা কাঠগড় সাংবাদিক জাহিদুল খান সৌরভের বাসায় গিয়ে তার পরিবারের মহিলাসহ অন্যান্যদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে।

এঘটনায় সাংবাদিক সৌরভের মা, ছেলেসহ তার ছোট ভাই দীপ আহত হয়। এছাড়াও ওই পুলিশ সদস্য গুলি করার হুমকিসহ প্রাণনাশের হুমকি প্রদর্শন করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

পরে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে এগিয়ে আসলে পুলিশ পরিচয় দানকারী শামীম আহমেদ সহ তার অপর এক সহযোগী মোটরসাইকেল যোগে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

এ ঘটনায় সাংবাদিক জাহিদুল খান সৌরভ সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

এব্যাপারে সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন অভিযোগের বিষয়টি সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রুবেল মিয়াকে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশনা দিয়া হয়েছে।