সর্বশেষ আপডেট

এখন ঘরে ঘরে হার্টের অসুখ ও স্মৃতি ভ্রমের সমস্যা। এখন আর আগেকার মতো শুধু বৃদ্ধ মানুষদেরই এই সমস্যা নেই। আট থেকে আশি সববয়সেই হার্টের অসুখ থাবা বসিয়েছে। কমবয়সী ছেলেমেয়েরাও দুর্বল স্মৃতিশক্তি, স্মৃতিভ্রমের অসুখে ভুগছে।
এখনকার দিনে প্যাকেটজাত খাবার ও দৈনন্দিন জীবনযাপন মস্তিষ্কের প্রভূত ক্ষতিসাধন করে তাকে দুর্বল করে দিচ্ছে। আর এর সবচেয়ে বড় শিকার ছোট ছেলেমেয়েরা। তবে এমন কিছু খাবার রয়েছে যা নানাভাবে হার্টের অসুখ ও স্মৃতি দুর্বলতায় প্রতিরোধ গড়ে তোলে। এই খাবার গুলো নিয়মিত খাবার তালিকায় রাখার চেষ্টা করুন।
মাছঃ
বিভিন্ন মাছে রয়েছে প্রোটিন ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যা হার্ট, মস্তিষ্ক সবেরই ক্ষতি রোধ করে।
খেঁজুরঃ
খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফসফরাস ও অন্যান্য উপকারী উপাদান যা মস্তিষ্ককে ক্ষুরধার করে ও হৃদরোগের রোগের সম্ভাবনা কমায়।
মধুঃ
স্বাস্থ্য সংক্রান্ত উপকারিতায় কোনও খাবার সম্ভবত মধুকে টেক্কা দিতে পারবে না। সব রোগের নিরাময় করতে মধু প্রয়োজন হয়। এতে রয়েছে নানা ধরনের ভিটামিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, পটাশিয়াম, ফসফরাস, ম্য়াগনেশিয়াম ইত্যাদি। ফলে হার্ট ও মস্তিষ্কের জন্যও মধু একইরকম প্রয়োজনীয়।

কালোজিরেঃ
কালোজিরেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস যা হার্ট বা মস্তিষ্ককে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচায়। উচ্চ রক্তচাপ কমাতে, মনোযোগ বাড়াতে কালোজিরে সাহায্য করে।
বাদামঃ
বাদামে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস, ভিটামিন বি-৬, ভিটামিন-ই ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। এটি মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ায়, কোলেস্ট্রেরলের মাত্রা কমায় ও হার্টকে সুস্থ রাখে।
কুমড়োরবীজঃ
কুমড়ো যেমন উপকারী তেমনই এর বীজে রয়েছে নানা খনিজ ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যা কোলেস্ট্রেরলের মাত্রা কমায় কমায় ও মস্তিষ্ককে ক্ষুরধার করে তোলে।
আমলকিঃ
আমলকিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস। ভিটামিন-সি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এছাড়া হার্ট ও মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন ঠিক রাখে।